1. me@nbtvnewsbd.com : nbtvnewsbd.com nbtvnewsbd.com : nbtvnewsbd.com nbtvnewsbd.com
  2. mc@nbtvnewsbd.com : NB TV NEWS BD :
মঙ্গলবার, ২১ মে ২০২৪, ০৭:০৮ পূর্বাহ্ন

ঝালকাঠির বাউল শিল্পী সালমা কিভাবে বেড়ে ওঠা শিল্পী হয়

রাজাপুর প্রতিনিধি রিয়াজ শিকদার NB Tv News DB
  • প্রকাশিত: শুক্রবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২৩
  • ২৩৬ বার পড়া হয়েছে

ছোটবেলা থেকেই গুনগুন করতে করতে গানের সঙ্গে বেড়ে ওঠা ছালমা বেগমের। গান নিয়ে কোনো প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা ছিল না তার। মানুষের দুঃখে ঝাঁপিয়ে পড়া স্বভাবের গুণে ধীরে ধীরে রাজনীতিতে সক্রিয় হওয়া এবং বর্তমানে তার আরও একটি পরিচয় হলো নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি। রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী সদস্য তিনি। বাউল ছালমাকে নিয়ে লিখেছেন আতিকুর রহমান

প্রত্যন্ত এলাকার এক অভাবী কৃষক পরিবারে জন্ম। পরিশ্রমী বাবার সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে ছেলেবেলায় মাটি কাটা, ফসলি জমিতে কাজ করা, গাছে ওঠা, মাছ ধরাসহ গ্রামীণ জীবনে একটু সুখের আশায় অনেক কষ্ট করতে হয়েছে। ছোটবেলা থেকেই পিতার সঙ্গে কাজের সময় গুনগুন করে মনের সুখে গান গাইতেন। গানের প্রতিও ঝোঁক ছিল তার চরম। প্রতিষ্ঠানিক শিক্ষা না পেলেও তিনি যেভাবে পারতেন সেভাবেই গান গাইতেন। অভাবী কৃষক পরিবারের কর্তা হয়েও নিজের ভেতরে ছেলের জন্য হাহাকার লালন করতেন না বাবা ইয়াকুব আলী। মেয়েকে স্কুলে ভর্তি করিয়ে দেন। তবে আর্থিক দীনতার কারণে মাধ্যমিকের গণ্ডি পেরিয়ে আর উচ্চ মাধ্যমিকে পড়াশোনা করার ভাগ্য হয়নি। বিদ্যালয়ের হয়ে সংগীত পরিবেশনে ইতিমধ্যে উপজেলা ছাড়িয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে প্রতিযোগিতায় অংশ নেওয়ায় খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। প্রতিবেশী বা এলাকার লোকজন কারও কোনো অসুবিধা অথবা বিপদ শুনলেই ঝাঁপিয়ে পড়ে সাধ্যমতো সহযোগিতা করার চেষ্টা করেন। গান পরিবেশনের ফলে তার শৈল্পিক চাহিদা দিন দিনই বাড়তে থাকে। বেশিরভাগ বাউল সংগীত পরিবেশন করায় ‘বাউল ছালমা’ হিসেবে সুনাম ও খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। মানবিক সেবামূলক কাজ করায় স্থানীয়সহ উপজেলা পর্যায়ে মানুষের আস্থার প্রতীক হয়ে ওঠেন। ২০২১ সালের ২১ জুন অনুষ্ঠিত স্থানীয় সরকার নির্বাচনে রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে বই প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বিজয়ী হন। ২০২২ সালে জেলা পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত হওয়ায় মহিলা বিষয়ক অধিদফতরের আয়োজনে জেলা প্রশাসক ফারাহ গুল নিঝুম তার হাতে সম্মাননা ক্রেস্ট ও সনদপত্র তুলে দেন। কথাগুলো বলছি রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া ইউনিয়নের সংরক্ষিত নারী ইউপি সদস্য ও বাংলাদেশ জাতীয় বাউল সমিতি ফাউন্ডেশনের বরিশাল বিভাগীয় আহ্বায়ক ও কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ছালমা বেগম।

যেভাবে বাউল হয়ে বেড়ে ওঠা

ঝালকাঠি জেলার রাজাপুর উপজেলার বড়ইয়া গ্রামের ইয়াকুব আলী ও মমতাজ বেগম দম্পতির ঘরে ছালমা বেগমের জন্ম। অভাবের সংসারে নুন আনতে পান্তা ফুরায় অবস্থার মধ্যে ছালমা বেগম ডানপিটে স্বভাবের হয়ে ওঠেন। বাড়ি সংলগ্ন দক্ষিণ বড়ইয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে প্রাথমিক শিক্ষা শেষে ওই এলাকায় নাসিমা খাতুন নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে অষ্টম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন। পিতার আয়ে সংসার চালাতে কষ্ট হলেও মেয়ের প্রতিভা দেখে বাবা রাজাপুর মডেল পাইলট বালিকা বিদ্যালয়ে নবম শ্রেণিতে ভর্তি করান। অর্থাভাবে পড়াশোনা চালিয়ে যাওয়া আর সম্ভব হয়ে ওঠেনি। এর পরপরই বিয়ে হয়ে যায় তার। ওই গ্রামের আলমগীর হোসেন শরীফের সঙ্গে দাম্পত্য জীবন শুরু হয় তার।

ছালমা বেগম বলেন, বরের পৃষ্ঠপোষকতায় সংগীত চর্চা ও মানবিক সমাজসেবামূলক কাজের গতি আরও বেড়ে যায়। বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সঙ্গে সম্পৃক্ততায় ব্যস্ত সময় কাটাতে শুরু করি। ছোটবেলা থেকেই সংগীতপ্রেমী হওয়ায় নিজেই অর্ধশতাধিক গান রচনা, সুর দেওয়া ও সংগীত পরিবেশন করে সুনাম অর্জনের পাশাপাশি তিন শতাধিক বাউল গানের মৌলিক শিল্পীর খ্যাতি ছড়িয়ে পড়ে। এক হাজারেরও বেশি গান মুখস্থ রয়েছে। ঝালকাঠি জেলার বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশনের পাশাপাশি দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আমন্ত্রিত হয়ে বাউল, লোক ও জারি গান পরিবেশন করি। যার মাধ্যমে দেশব্যাপী বাউল ছালমা হিসেবে পরিচিতি অর্জনের সৌভাগ্য হয়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

আরো সংবাদ পড়ুন

পুরাতন সংবাদ পড়ুন

সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র শনি রবি
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: বাংলাদেশ হোস্টিং